ফ্রান্সের বিতর্কিত কাটুনের নিন্দা সৌদি আরবের

10
সৌদি আরবের বাদশা সালমান বিন আব্দুলআজিজ। ফাইল ছবি: রয়টার্স

মঙ্গলবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তার দেওয়া এ বিষয়ক বিবৃতিটি দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যম প্রকাশ করেছে।

এতে অন্যান্য কয়েকটি মুসলিম দেশের মতো ফ্রান্সের পণ্য বর্জনের ডাক দেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছ বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ফ্রান্সে ইতিহাসের এক শিক্ষক ক্লাসে মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন দেখানোর কারণে হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়ার ঘটনায় ফ্রান্সজুড়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া হয়। এর প্রতিক্রিয়ায় দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ মৌলবাদী ইসলামের বিপরীতে দেশের ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধ সমুন্নত রাখা নিয়ে দৃঢ়কণ্ঠে কথা বলেন।

‘ফ্রান্স ব্যঙ্গচিত্র দেখানো বন্ধ করবে না’ বলেও জানান তিনি। 

তার এসব মন্তব্যে বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের মধ্যে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। ইসলামিক ঐতিহ্যে মহানবী (সাঃ) ও আল্লাহর কোনো ছবি প্রদর্শন স্পষ্টভাবে নিষিদ্ধ। এ ধরনের কোনো কিছু মারাত্মক অপরাধ বলে গণ্য হয়।

‘বিশ্বাসের স্বাধীনতার’ প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন না করার জন্য ও ফ্রান্সের লাখ লাখ মুসলিমকে অবজ্ঞা করার জন্য ম্যাক্রোঁর তীব্র সমালোচনা করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিজেপ তায়িপ এরদোয়ান ও পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

ইসলাম নিয়ে ম্যাক্রোঁর সঙ্গে বিরোধের জেরে জনগণের প্রতি ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছেন এরদোয়ান।

এর আগে রোববার জর্ডান, কাতার ও কুয়েতের কিছু সুপারমার্কেটের ডিসপ্লে থেকে ফ্রান্সের তৈরি সৌন্দর্য চর্চার উপকরণসহ বিভিন্ন ফরাসি পণ্য সরিয়ে নেওয়া হয়।

কুয়েতে খুচরা পণ্য বিক্রেতাদের একটি প্রধান সমিতি ফরাসি পণ্য বর্জনের আদেশও দিয়েছে।

আরও পড়ুন:

ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক দিলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট
 

আরব দেশগুলোকে ‘ফরাসি পণ্য বর্জন’ রোধ করার অনুরোধ ফ্রান্সের
 

এবার ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁর কঠোর সমালোচনায় ইমরান খান
 

ম্যাক্রোঁর মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে তুরস্কের মন্তব্যে ক্ষুব্ধ ফ্রান্স, রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার
 

শিক্ষক খুন: মসজিদ বন্ধ করল ফ্রান্স
 

প্যারিসে শিক্ষককে গলা কেটে হত্যা ‘সন্ত্রাসী হামলা’, আটক ৯
 

ফ্রান্সে শিক্ষকের সমর্থনে, রক্তপাতের প্রতিবাদে বিশাল সমাবেশ
 



Source by [Original Post]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here