‘রানিমা’কে ছিটকে দিয়ে শীর্ষস্থান দখলে নিল ‘মোহর’ | 966770 | কালের কণ্ঠ

6
‘রানিমা’কে ছিটকে দিয়ে শীর্ষস্থান দখলে নিল ‘মোহর’ | 966770 | কালের কণ্ঠ

নাটকীয় সংলাপ মেগার দর্শককে বরাবর টেলিভিশনের সামনে এনে হাজির করেছে। মেগার সমস্ত চরিত্রের সংলাপ এমন নাটকীয়তায় মুড়ে দিয়েছেন তাঁরা যে দর্শক পর্দার সামনে বসে থাকতে বাধ্য।গোটা সপ্তাহ জুড়ে দর্শকদের বিচারের নিরিখে টিআরপি’র হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলে জি বাংলা এবং স্টার জলসার ধারাবাহিকগুলির মধ্যে। এই সপ্তাহে পাল্টে গেল অনেক হিসাব । যেমন এই সপ্তাহে জি বাংলার সুপারহিট ব্লকবাস্টার মেগা ‘করুণাময়ী রাণী রাসমণি’কে টিআরপি টেবিলের প্রথম স্থান থেকে ছিটকে দিয়েছে স্টার জলসার সবচেয়ে জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘মোহর’। যদি ভিউয়ারশিপ বিচার করা যায় সেক্ষেত্রে ‘মোহর’ অপ্রতিরোধ্য এবং ‘করুণাময়ী রাণী রাসমণি’ এই মুহূর্তে অনবদ্য ৷ হ্যাট্রিক করতে যাওয়া ‘রানিমা’ এ বারে বার্ক ১৫+ আরবান টিআরপি রেটিং ১০.০ পেয়ে  টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে চলে গেছে আর সে সুযোগে ‘মোহর’ ১০.৬ রেটিং পয়েন্ট পেয়ে এই সপ্তাহের ‘বেঙ্গল টপার’ এর স্বীকৃতি পেয়েছে ৷ তৃতীয় স্থান নিয়ে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই ছিল ‘সাঁঝের  বাতি’ , ‘কৃষ্ণকলি’এবং ‘খড়কুটো’র মধ্যে। চলতি সপ্তাহে তারা জায়গা বদল করেছে ৷ ৯.৭ পয়েন্ট সংগ্রহ করে তৃতীয় ‘সাঁঝের বাতি’ অর্থাৎ, চারু-আর্য-মিশমি ত্রয়ী ভাল ছাপ ফেলেছে দর্শক মনে বলতেই হচ্ছে । তবে বার্কের ২+ টিআরপি চার্টে আরো অপ্রতিরোধ্য মোহর;১১.৮ পয়েন্ট সেখানে অর্জন তাদের ৷ তবে মোহর ধারাবাহিকের বিপরীত স্লটে আসা জি বাংলার জীবন সাথি’র ওপেনিং টিআরপি ছিল মোটে ৫.৮!

‘আমার জীবন আমার অধিকার’-এই ট্যাগলাইন নিয়ে এগিয়ে গেছে মোহরের জীবনের গল্প । সেখান থেকে শঙ্খ স্যারের সঙ্গে মোহরের প্রেম-ঝগড়া,মান-অভিমান কিংবা মন্দিরের বিবাহ যেমন তরতর করে রেটিং চার্টে এগিয়ে নিয়ে চলেছে ‘মোহর’ ধারাবাহিকটিকে । এদিকে মোহরের গালে ঠাঁটিয়ে চড় কষিয়েছে শঙ্খ’র প্রাক্তন প্রেমিকা শ্রেষ্ঠা ম্যাম! এই দৃশ্য দেখে রীতিমতো চমকে উঠেছেন মা-কাকিমারা। সবার প্রিয় মোহর সিরিয়ালের এই দৃশ্য এখন ঘরে ঘরে আলোচিত হচ্ছে।রাত আটটা(বাংলাদেশ সময় সাড়ে ৮টা) বাজা মানেই এখন স্টার জলসা খুলে বসে পড়ে বাঙালি মা কাকিমারা। অনেক সময়ে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীরাও কিন্তু মোহর ও শঙ্খ স্যারকে একঝলক দেখবে বলে বসে পড়ে টিভির সামনে। শঙ্খ স্যার ওরফে প্রতীক সেন এবং মোহর ওরফে সোনামণি সাহা এমন শক্তপোক্ত অভিনয় করছেন যে তারা এখন বাঙালি ঘরের অপরিহার্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে । ভালোবেসে তাই তাঁরা ‘মোহদ্বীপ’ নামেও পরিচিত বাংলায় ৷ কারণ বাংলা সিরিয়ালের ইতিহাসে এখনো পর্যন্ত কলেজ ছাত্রী এবং প্রফেসরের প্রেম নিয়ে কোনো ধারাবাহিক দেখানো হয়নি। সেই হিসাবে মোহরই প্রথম যেখানে শিক্ষক ও ছাত্রীর মধ্যে এই ধরণের প্রেম দেখানো হচ্ছে। বিয়ের পর মন্দিরে শিবলিঙ্গের সামনের রোম্যান্স হোক বা জলভরা কাঁচের গ্লাস মাঝে রেখে সোশ্যাল ডিসটেন্সিং বজায় রেখে চুমু খাওয়া, সবেতেই মোহর সিরিয়াল এখন পাল্লা দিচ্ছে স্টার জলসার বাকি সিরিয়াল গুলোকে।

মোহর এবং শঙ্খ’র কিছুদিন আগেই বিয়ে হয়েছে; বৌভাতের দিন মোহরকে নিয়ে আংটি কিনতে যাচ্ছিলেন শঙ্খ, তা দেখে স্যারের প্রাক্তন প্রেমিকা শ্রেষ্ঠা হিংসায় জ্বলে গিয়ে পুলিশের কাছে শঙ্খ’র নামে প্রতারণার অভিযোগ করে। সেই ঝামেলা মেটার পর মোহর কলেজে গিয়ে শ্রেষ্ঠার সঙ্গে কথা বলতে গেলে গন্ডগোল বাঁধে।মোহর স্পষ্ট বলে দেয় যে এখন শঙ্খ তার বিবাহিত স্বামী। তাই তার কোন ক্ষতি মোহর সহ্য করবে না। অন্যদিকে শ্রেষ্ঠা সেই কথা শুনে তেলেবেগুনে জ্বলে গিয়ে মোহরের দুই গালে কষিয়ে তিনটি থাপ্পড় মারেন। যা দেখে রীতিমতো ক্ষিপ্ত হয়ে গিয়েছেন দর্শকরা।বাংলায় জল্পনা তাহলে এর পরে কী হবে ? প্রতিবাদ হবে না! নতুন প্রমোতে দেখা যাচ্ছে শঙ্খ রেগে গিয়ে ক্লাস না করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। যে কারণে ছাত্রছাত্রীরা শ্রেষ্ঠা’র উপর ক্ষিপ্ত তবে কি ছাত্র-ছাত্রীদের চাপে শ্রেষ্ঠা ম্যাম ক্ষমা চাইবে মোহরের কাছে? জানতে গেলে চোখ রাখতে প্রতি সোম-রবি স্টার জলসার পর্দায়। তেমনই অন্যদিকে জি বাংলার সব ধারাবাহিকের মধ্যে যে ধারাবাহিকটি শুরুর দিন থেকে দর্শকের মন ছুঁয়ে এসেছে তা হল করুণাময়ী রানী রাসমনি। সন্ধ্যে সাড়ে ৬টা বাজলেই হাতে রিমোট নিয়ে টিভির পর্দার সামনে বসা চাই। 

রানিমার চরিত্রে দিতিপ্রিয়ার অসামান্য অভিনয়ের জন্য বরাবরই প্রশংসিত হয়ে এসেছেন নায়িকা। তার কাজের জন্যই সবসময় এই ধারাবাহিকটি টিআরপি-এর দৌড়েও বেশ ভালো স্থানেই থেকে এসেছে।আর রানিমা? ‘সামান্য মেয়ের অসামান্য হয়ে ওঠা’— এটাও নিশ্চয়ই নাড়া দিয়েছে দর্শক মনকে? দর্শক রাসমণির আধ্যাত্মবাদ, বিধবা হওয়ার পরেও ব্যবসায় সক্রিয় অংশগ্রহণ দেখতে পছন্দ করেছিলেন। পুত্রসন্তান না হওয়ায় রাসমণি সারা ক্ষণ জামাইদের মুখাপেক্ষী, মেয়ে-জামাইদের থেকে যন্ত্রণা পাচ্ছেন, দর্শক রাসমণি নয়, এই দৃশ্যে ঘরের মেয়েকেই যেন খুঁজে পেয়েছেন।এই সাধারণ মেয়ের ‘মহীয়সী’ হয়ে ওঠার গল্পে যোগ হয়েছে দেবী কালী আর শ্রীরামকৃষ্ণ।  বাঙালি দর্শকের কাছে রানি রাসমণি আর পাঁচটা বাঙালি বউয়ের চরিত্র হয়ে এল এই ধারাবাহিকের মাধ্যমে। মানুষ, বিশেষত মেয়েরা নিজেকে খুঁজতে থাকল রানিমার মধ্যে। ভোগিনী থেকে যোগিনী হওয়ার প্রতিটি ধাপ যেন বড় বেশি রক্তমাংসে গড়া— এত ভাবে রাসমণিকে দেখেছেন দর্শক। এই বৈচিত্র্যই রাণী রাসমণির তুমুল জনপ্রিয়তার কারণ।

অন্যদিকে গুনগুন ও সৌজন্যের রসায়ন জমজমাট হওয়ায় স্টার জলসার ফ্যামিলি ড্রামা খ্যাত ‘খড়কুটো’ ধারাবাহিকটিকে সেরা পাঁচ থেকে সম্প্রচার শুরু হওয়ার পর থেকেই কখনো সরানো যায়নি ।তবে এই সপ্তাহে আরেক জনপ্রিয় সিরিয়াল ‘শ্রীময়ী’ ছিটকে দিয়েছে প্রাক্তন টিআরপি কুইন খ্যাত কৃষ্ণকলিকে!‘শ্রীময়ী’ ধারাবাহিকের গল্প এখন যেখানে রয়েছে, আগামী কয়েক সপ্তাহে রেটিং আরো কিছুটা বাড়তে পারে। বর্তমানে শ্রীময়ী ধারাবাহিকে ডিঙ্কার বিয়ে দেখানো হচ্ছে, পুরনো প্রেমিকা অর্ণাকে ভুলে এখন কিয়াকে জীবনসঙ্গী রূপে বেছে নিয়েছে ডিঙ্কা।ডিংকা-কিয়া বিবাহ পর্ব শেষ হয়েছে; রোহিত সেন-শ্রীময়ী-অনিন্দ্য-জুন চারজনই এই ধারাবাহিকের প্রধান অস্ত্র ৷ তবে লীনা গাঙ্গুলী দর্শকদের মন বোঝেন ভালোমতোই;কখন কোন জায়গায় টুইস্ট আনতে হবে তা তিনি ভালোই বোঝেন৷ যাই হোক. সেখানেও দর্শকের আগ্রহটা তুঙ্গে কি হয় !

খুব বেশি অদলবদল নেই এবারের টিআরপি তালিকায়। নীচে রইল এই সপ্তাহের টিআরপি সেরা দশ তালিকার বাকি ধারাবাহিক ও তার রেটিং– 
প্রথম– মোহর (১০.৬)
দ্বিতীয়– করুণাময়ী রাণী রাসমণি  (১০.০)
তৃতীয়– সাঁঝের বাতি (৯.৭)
চতুর্থ– খড়কুটো  (৯.২)
পঞ্চম–শ্রীময়ী (৮.৭)
ষষ্ঠ– কৃষ্ণকলি (৮.৫)
সপ্তম– যমুনা ঢাকী (৮.১)
অষ্টম– আলো ছায়া (৬.৭)
নবম– ভাগ্যলক্ষ্মী (৬.৬)
দশম– কি করে বলব তোমায় (৬.৩)

বিগত দু’মাস ধরেই স্টার জলসা-র জিআরপি অত্যন্ত ভালো অবস্থায় রয়েছে । তবে আইপিএল এর জন্যএই সপ্তাহের স্টার জলসার জিআরপি কমে ৬৭৭ ও জি বাংলার জিআরপি আরো কমে ৬৩৮ । স্টার জলসা ও জি বাংলা-র তুলনায় বাকি চ্যানেলের জিআরপি অনেকটা পিছিয়ে থাকায় বাকি চ্যানেলগুলির কোনও ধারাবাহিকই সেরা দশ তালিকায় পৌঁছতে পারে না । তবে উল্লেখযোগ্য ভাবে লড়াইয়ে ফিরেছে জি বাংলার নন ফিকশন শো ‘জি বাংলা সারেগামাপা’ ৭.২ রেটিং নিয়ে । টিআরপির লড়াই এখন দু’ধরণের দর্শকদের মধ্যে;এক পক্ষ  আইপিএল দেখছে আর যারা পারছে না তারা মোবাইল কিংবা কম্পিউটারে দেখছে তাই মেগাসিরিয়াল এর আকর্ষণ যে এখনো চলমান তাই বলাই বাহুল্য ৷
 



Source by [Original Post]

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here